যে কারণে বরকত নষ্ট হয়
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০২:৫৫

যে কারণে বরকত নষ্ট হয়

ইসলামিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৭/০৫/২০২৪ ০৪:৪২:০০

যে কারণে বরকত নষ্ট হয়


কুদৃষ্টির কারণে মানুষের রিজিক এবং সময় থেকে বরকত উঠে যায়। ছোট ছোট কাজ বিশালাকার ধারণ করে। যে কাজের চেষ্টাই করুক না কেন সেটা অসম্পূর্ণ থেকে যায়। বাহ্যিকভাবে মনে হয় কাজ হয়ে যাবে, কিন্তু যথাসময়ে গিয়ে দেখা যায় যে, হতে হতেও কাজটি অসম্পূর্ণ থেকে যাচ্ছে। এর ফলে দুশ্চিন্তা ও পেরেশানি বাড়ে বৈ কমে না। অনেকে তো বলেই বসে, ‘একটা সময় ছিল, যখন স্পর্শ করলে মাটিও সোনায় পরিণত হতো। আর এখন সোনা স্পর্শ করলেও তা মাটি হয়ে যাচ্ছে।’ কিন্তু কেন? এর কারণ কী?

হজরত উমর (রা.) বলেন, দু’টি পুরাতন জীর্ণ হাড়ও যদি নির্জনে একত্রিত হয়, একে অন্যের প্রতি আসক্ত হবেই হবে। (দু’টি জীর্ণ হাড় দ্বারা বৃদ্ধ ও বৃদ্ধাকে বোঝানো হয়েছে।)

হজরত মাওলানা খলিল আহমাদ সাহারানপুরী (রহ.) বলতেন, কুদৃষ্টি স্মৃতিশক্তির জন্য প্রাণনাশকারী বিষের ন্যায়।

হজরত মুজাদ্দিদে আলফেসানি (রহ.) স্বীয় চিঠিপত্র সংকলনে লিখেছেন, যার দৃষ্টি নিয়ন্ত্রণে নেই, তার অন্তরও নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে যায়। আর যার অন্তর নিয়ন্ত্রণহীন হয় তার লজ্জাস্থানও তার নিয়ন্ত্রণে থাকবে না।

শায়খুল হাদিস যাকারিয়া (রহ.) বলেছেন, এক ব্যক্তির মৃত্যুর সময় লোকেরা তাকে কালেমার তালকিন (মুমূর্ষূ ব্যক্তিকে কালেমা স্মরণ করিয়ে দেওয়া) করতে লাগল। সে উত্তর দিল, (কালেমা পাঠের সময়) আমার জিহ্বা নড়ছে না। জিজ্ঞাসা করা হলো, কী কারণে এমন হচ্ছে? সে বলল, এক নারী আমার কাছে তোয়ালে ক্রয়ের জন্য এসেছিল। আমার তাকে ভালো লেগে গিয়েছিল, তাই লালসার দৃষ্টিতে তাকে দেখছিলাম। -আপবীতী : ৬/৪২০

শায়খুল হাদিস যাকারিয়া (রহ.) আরও বলেন, ‘কুদৃষ্টি বড়ই বিধ্বংসী রোগ। আমার অনেক পরিচিতজনদের ওপর এর প্রভাব পড়েছে। তাই একটি অভিজ্ঞতা আমারও আছে। জিকিরে মনোনিবেশের ফলে শুরুতে স্বাদ লাভ ও জোশের একটি অবস্থা সৃষ্টি হয়। কিন্তু কুদৃষ্টির কারণে ইবাদতের মিষ্টতা ও স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়। এরপর ধীরে ধীরে তা ইবাদত ছুটতে থাকারও কারণ হয়ে দাঁড়ায়। -আপবীতী : ৬/৪১৮

কুদৃষ্টি দ্বারা স্মৃতিশক্তি দুর্বল হয়ে যায় : হজরত মাওলানা খলিল আহমাদ সাহারানপুরী (রহ.) বলেন, পর নারী এবং নাবালেগ শিশুদের কুদৃষ্টির সঙ্গে দেখার ফলে স্মৃতিশক্তি দুর্বল হয়ে যায়।

কুদৃষ্টি দ্বারা কখনও তৃপ্তি লাভ হয় না : হাকিমুল উম্মত হজরত আশরাফ আলী থানভি (রহ.) বলেন, ‘কুদৃষ্টি যত বেশি পরিমাণেই করা হোক, এমনকি যদি হাজার হাজার নারী-পুরুষকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় নিয়েও দেখা হয়, তবুও তাতে তৃপ্তি লাভ হবে না।’

আলেমরা বলেন, কুদৃষ্টি এমন পিপাসার জন্ম দেয়, যা কখনও নিবারণ করা যায় না। পানি শূন্যতার রোগীকে যত পানিই পান করানো হোক, যদি তার পেট ফেঁটে যাবারও উপক্রম হয়, তবুও তার পিপাসা দূর হয় না। আল্লাহতায়ালা একজনকে অপরজনের তুলনায় অধিক সৌন্দর্য দান করেছেন। মানুষ যত সুন্দরিকেই দেখুক না কেন, একজনকে দেখবে তো আরেকজনকে দেখার আগ্রহ সৃষ্টি হবে। এটি এমন এক সমুদ্র, সারাজীবন সাঁতার কেটেও যার তীরে পৌঁছা সম্ভব নয়। কেননা এটি হচ্ছে কূলহীন দরিয়া।

আল্লাহতায়ালা সবাইকে চোখের হেফাজত করে দৃষ্টি নিয়ন্ত্রণ করে চলার তওফিক দান করুন।


এলএইচ


This is the free demo result. For a full version of this website, please go to Website Downloader