সরকারি চাকুরীজিবীদের জন্য শুদ্ধাচার হল একটি উত্তম চর্চা: জেলা প্রশাসক
বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৩

সরকারি চাকুরীজিবীদের জন্য শুদ্ধাচার হল একটি উত্তম চর্চা: জেলা প্রশাসক

জৈন্তা বার্তা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২/০২/২০২৪ ০৮:১৮:০১

সরকারি চাকুরীজিবীদের জন্য শুদ্ধাচার হল একটি উত্তম চর্চা: জেলা প্রশাসক


সিলেটের জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান বলেছেন, সরকারি চাকুরীজিবীদের জন্য শুদ্ধাচার হল একটি উত্তম চর্চা। এতে যেকোন প্রতিষ্টানের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হয়। জনগণের সাথে সুন্দর সম্পর্ক তৈরি হয়। সরকার কর্মকর্তা কর্মচারীদের সব ধরণের সুযোগ সুবিধা যেখানে প্রদান করছে সেখানে রাষ্ট্রের জনগণের জন্য আমরা কেন কাজ করবোনা? জনগণের জন্য সেবার সুযোগ সৃষ্টি করে দিলেই কেবল শুদ্ধাচার নিশ্চিত করা সম্ভব।

তিনি বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারী) সকালে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ড ও সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর আয়োজনে শুদ্ধাচার/উত্তমচর্চা বিষয়ে অংশীজনের সাথে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে তয় প্রন্তিকের সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক আরো বলেন, সরকার শতভাগ বিদ্যুতায়ন নিশ্চিত করেছে। বিদুৎ বিভাগ অত্যন্ত গতিশীলতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বলেই আজ পুরো দেশ বিদ্যুতের আওতায় চলে এসেছে। এমন প্রশংসনীয় কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ স্বাধীনতা পুরস্কার অর্জন করেছে। তিনি বলেন, চাহিদার তুলনায় আমরা বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করছি। তাই বিদ্যুৎের লোডশেডিং কমাতে হবে। গ্রাম আর শহরের বৈষম্য দূর করে সমপরিমাণে বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে হবে। বিদ্যুৎ যাতে গ্রাহক নিজেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারে আমাদেরকে সে লক্ষ্যেই এগিয়ে যেতে হবে। কারণ বিদ্যুৎ শতভাগ না থাকলে উন্নত কিংবা স্মার্ট বাংলাদেশ কোনটাই আমরা অর্জন করতে পারবোনা। গ্রহকের চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখে বিদ্যুৎের জন্য মানুষ যেন ভুক্তভোগী না হয় এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বিদ্যুৎ বিভাগকে পরামর্শ দেন তিনি।

অনুষ্টানে যুগ্ম সচিব ও  বাংলাদেশ পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ডের সদস্য (প্রশাসন) মোঃ হাসান মারুফ সভাপতির বক্তব্যে বলেন, আমরা প্রতিটি গ্রামকে আলোকিত করতে চাই। এজন্য আমাদের প্রায় ১৩/১৪ কোটি গ্রাহককে আমরা সর্বোচ্চ সেবা দিতে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। কল সেন্টারের মাধ্যমে গ্রাহকদের অভিযোগ শুনে সমাধানের চেষ্টা করছি। আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে। জ্বালানী সংকটের কারনে বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হয়না। তবুও আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় গ্রাহকদের নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিয়ে যাচ্ছি।

সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর ডিজিএম আরিফ শাহরিয়ার ফাহাদের সঞ্চালনায় অনুষ্টানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ডের পরিচালক মো. হালিমুজ্জামান, উপ পরিচালক এস এম কামাল হোসেন, সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জিএম মো. আক্তারুজ্জামান লস্কর, সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর জিএম সঞ্জিব রায় চৌধুরী, বিদ্যুতায়ন বোর্ড সিলেটের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সৈয়দ নিয়াজ মোহাম্মদ, হবিগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম প্রকৌশলী সঞ্জিত কুমার বিশ্বাস, মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুত সমিতির জিএম এবি এম মিজানুর রহমান, সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম মিলন কুমার কুন্ডু ও ওসমানীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামীম আহম।

আরো বক্তব্য রাখেন সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর এজিএম মুনতানসীর মজুমদার, লতিফা শফি চৌধুরী মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আমিরুল আলম খান, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, সমিতি বোর্ডের সহসভাপতি মাহবুবুর রহমান, সমিতি বোর্ডের সাবেক সভাপতি ও  গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ, অগ্রণী ব্যাংক কর্মকর্তা লোকমান আহমদ, সাংবাদিক খালেদ আহমদ, দক্ষিণ সুরমা প্রেসক্লাবের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম ইমরান,  ঠিকাদার মামুনুর রহমান, আমজাদ মোল্লা, আবু হোরায়রা, আব্দুস সালাম, জাহেদ আহমদ, দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ। 

জৈন্তাবার্তা/এমকে


This is the free demo result. For a full version of this website, please go to Website Downloader