টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সুপার ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের বাজিমাত
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:০০

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সুপার ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের বাজিমাত

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮/০৬/২০২৪ ১০:৫১:৪৮

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সুপার ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের বাজিমাত

ছবি: সংগৃহীত


নির্ধারিত ওভারে জয়ের দুয়ারে গিয়েও শেষ বলে সমীকরণ মেলাতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। তবে, শেষ বলে বাউন্ডারি হঁাকিয়ে ম্যাচ সুপার ওভারে নিয়ে যান নিতিশ কুমার। সুপার ওভারে গিয়েও দুর্দান্ত যুক্তরাষ্ট্র। আগে ব্যাট করে পাকিস্তানকে ছুঁড়ে দেয় ১৯ রানের বিশাল লক্ষ্য। যা পাড়ি দিতে ব্যর্থ পাকিস্তান। অবিশ্বাস্য ম্যাচে বাবরদের উড়িয়ে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নেয় যুক্তরাষ্ট্র।

বিশ্বকাপের ১১তম ম্যাচে পাকিস্তানকে সুপার ওভারে হারিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার উপলক্ষ দারুণ জয়ে রাঙাল স্বাগতিকরা।

ম্যাচের নির্ধারিত সময়ে জিততে হলে যুক্তরাষ্ট্রকে পাড়ি দিতে হতো স্রেফ ১৫৯ রান।এই মাঝারি রান তাড়ায় জয়ের দুয়ারেই চলে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। দুর্দান্ত ব্যাটিং করে শেষ দুই বলে সমীকরণ দঁাড়ায় মাত্র ৬ রানের। সিঙ্গেল নিয়ে শেষ বলে ৫ রানের সমীকরণ দঁাড় করান অ্যারন জোন্স। এখানেই শেষ চমকটা দেখান নিতিশ কুমার। বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে দেন এই স্বাগতিক ব্যাটার। তাতে, পাকিস্তান বনাম যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। সেখানেই জয়ের গল্প লিখে ফেলে স্বাগতিকরা।

বিশ্বকাপ শুরুর আগেই বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের আধিপত্যের জানান দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। পরের গল্পটা টি-টোয়েন্টি  বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে। কানাডার বিপক্ষে ১৯৪ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করে বিশ্বকে চমকে দেয় স্বাগতিকরা। এবার পাকিস্তানের বিপক্ষেও বাজিমাত যুক্তরাষ্ট্রের।

টেক্সাসে এদিন মার্কিনিদের সঙ্গে ব্যাট হাতে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি পাকিস্তান। টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে সাত উইকেট হারিয়ে দলটি তোলে ১৫৯ রান। জবাব দিতে নেমে ২০ ওভারে সমান ১৫৯ রান করল যুক্তরাষ্ট্র। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৮ বলে ৫০ রান করেন মোনাঙ্ক প্যাটেল। ২৬ বলে ৩৬ রান করেন অ্যারন জোন্স। শেষ দিকে নেমে ১৪ রানের ক্যামিও খেলেন নিতিশ।

এদিন আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই পাকিস্তানকে হতাশ করেছেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। আট বলে ৯ রান করে সৌরভ নেত্রবালকারের শিকার হন তিনি। রিজওয়ানের ক্যাচ নেন স্টিভেন টেইলর। পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজমের ব্যাট থেকে দলীয় সর্বোচ্চ ৪৪ রান এসেছে বটে, তার জন্য তিনি খেলেছেন ৪৩টি বল। ধীরগতির ইনিংসের ইতি ঘটে জসদীপ সিংয়ের বলে লেগ বিফোর হলে।

টপ অর্ডারের দুই ব্যাটার উসমান খান ও ফখর জামানও ব্যাট হাতে বড় সংগ্রহ গড়তে ব্যর্থ। উসমান তিন এবং ফখর ১১ রানে সাজঘরে ফেরেন। টানা সমালোচিত হওয়ার পরও দলে জায়গা পাওয়া আজম খান আরেকবার সমালোচনার সুযোগ করে দিয়েছেন সবাইকে। মুখোমুখি হওয়া প্রথম বলেই লেগ বিফোর হন কেনজিগের বলে।

পাকিস্তানকে শেষ পর্যন্ত দেড়শ রানের ঘর পার হতে সাহায্য করে শাদাব খানের ইনিংস। দলের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান আসে শাদাবের ব্যাট থেকে। এর জন্য তিনি খেলেন ২৫ বল। আর শেষ দিকে শাহিন আফ্রিদির ১৬ বলে অপরাজিত ২৩ রান কিছুটা এগিয়ে নেয় পাকিস্তানকে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে কেনজিগে তিনটি এবং সৌরভ দুই উইকেট শিকার করেন।

এস এইচ টি/


This is the free demo result. For a full version of this website, please go to Website Downloader